“নিশ্চয়ই আল্লাহ সবচেয়ে উত্তম পরিকল্পনাকারী।” এটি কোন সূরার কোন আয়াত

Author:

Published:

Updated:

"নিশ্চয়ই আল্লাহ সবচেয়ে উত্তম পরিকল্পনাকারী।" এটি কোন সূরার কোন আয়াত

Get Study Online – Google News

Do you want to get our regular post instant? So you can follow our Google News update from here.

“নিশ্চয়ই আল্লাহ সবচেয়ে উত্তম পরিকল্পনাকারী।” এটি কোন সূরার কোন আয়াত

“নিশ্চয়ই আল্লাহ সবচেয়ে উত্তম পরিকল্পনাকারী।” [সূরা আনফাল : ৩০]

Surely Allah is the best planner – [Surah Anfal: 30]

আজকের পোস্টে যে বাক্যটি নিয়ে আলোচনা করা হবে তা ইসলামের ধর্মীয় বিশ্বাসের সাথে সম্পর্কিত। “নিশ্চয়ই আল্লাহ সর্বোত্তম পরিকল্পনাকারী” এর অর্থ হল আল্লাহ তার পরিকল্পনা ও সিদ্ধান্তে সর্বোত্তম এবং নিখুঁত। ইসলাম বিশ্বাস করে যে আল্লাহ সর্বজ্ঞ এবং সর্বশক্তিমান। অতএব, তাঁর পরিকল্পনা বা ইচ্ছা অপরিহার্য এবং তাঁর পরিকল্পনা সর্বদা সঠিক। অনেক সময়, মানুষের জীবনে এমন কিছু ঘটে যা তাদের পক্ষে বোঝা সহজ নয়। কিন্তু ইসলামিক দৃষ্টিভঙ্গি অনুসারে, আমাদের অবশ্যই বিশ্বাস করতে হবে যে আল্লাহর পরিকল্পনা এবং সিদ্ধান্ত সর্বদা ভাল এবং সঠিক। এটি ধৈর্য এবং আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধিতে সহায়ক। আমাদের উচিত আল্লাহ তাআলার ফায়সালার উপর ধৈর্য ধারণ করা । তো চলুন আজকের পোস্ট নিয়ে আলোচনা করা যাক –

“নিশ্চয়ই আল্লাহ উত্তম পরিকল্পনাকারী” এর শিক্ষা:

মক্কায় কাফেররা মুসলমানদের উপর অত্যাচার শুরু করলে আল্লাহর নির্দেশে মুসলমানরা ধীরে ধীরে মক্কা থেকে মদীনায় হিজরত করে। এই ঘটনায়, কাফেররা এক রাতে একত্রিত হয়ে আলোচনা করে: “যেভাবে মুসলমানরা মক্কা থেকে হিজরত করা শুরু করেছে , সেভাবে একদিন মুহাম্মদ (সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) হিজরত করবেন । তাই তাদের মধ্যে কেউ একজন মুহাম্মাদ (সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) কে বন্দী করার সিদ্ধান্ত নেন এবং কেউ আবার তাকে হত্যা করার সিদ্ধান্ত নেন। সমস্ত কাফেররা হত্যার চূড়ান্ত পরিকল্পনায় সম্মত হন।

আল্লাহ তায়ালা কাফিরদের পরিকল্পনা সম্পর্কে হজরত জিব্রাইল (আ.)-এর মাধ্যমে প্রিয় নবী মুহাম্মদ (সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)-কে জানিয়েছিলেন। অতঃপর নবী করীম (সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) হযরত আলী (রাদিয়াল্লাহু আনহু) কে তার বিছানায় শুয়ে রেখে দিলেন, যেন কাফেররা মনে করে যে নবী ঘুমাচ্ছেন। এদিকে কাফেররা প্রিয় নবীজীর (সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) ঘর ঘিরে ফেলে। বের হওয়ার মতো কোনো উপায় নেই। দেখুন আল্লাহর কেমন পরিকল্পনা -(এটাই আমাদের মানতে হবে যে, নিশ্চয়ই আল্লাহ উত্তম পরিকল্পনাকারী) তারপর আল্লাহর নির্দেশে এক মুঠো বালি নিক্ষেপ করলেন।

অতঃপর আল্লাহর হুকুমে ফেরেস্তারা সকল কাফেরদের চোখে বালি পৌঁছে দিল। অতঃপর সবাই যখন চোখ আঁচড়াতে ব্যস্ত তখন নবীজি সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সবার মধ্যে দিয়ে ধাক্কা দিয়ে বেরিয়ে এলেন, কিন্তু কাফেররা ভাবল তারা নিজেরা নিজেরা একজন আরেকজনকে ধাক্কাচ্ছে । এরপর তিনি হজরত আবু বকরের রাদিয়াল্লাহু আনহুর সঙ্গে মদিনার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। জেনে নিন কোরআন হাদিসের বাণী সহ সকল পোস্ট থেকে ।

Surely Allah is the best planner – [Surah Anfal: 30]

এদিকে কাফেররা নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম)-কে ঘুমোতে দেখে এবং সকাল পর্যন্ত অপেক্ষা করে, এছাড়া ভেবেছিল তারা তাঁকে হত্যা করবে এবং ভোরের আলোতে আনন্দ করবে। কিন্তু আল্লাহ সর্বশক্তিমান সর্বোত্তম পরিকল্পনাকারী, তিনি কাফেরদের পরিকল্পনা ধ্বংস করে দিয়েছেন। যখন সকাল হল, কাফেররা মুহাম্মাদ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর পরিবর্তে আলী (রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) কে দেখতে পেল এবং জানতে পারল যে মুহাম্মাদ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) রাতে মদীনার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন।

সূরা আনফালের ৩০ নং আয়াতের “নিশ্চয়ই আল্লাহ উত্তম পরিকল্পনাকারী” এই অংশটুকু থেকে আমাদের উপরোক্ত ঘটনাটি স্বরণ হয়ে থাকে এবং আমরা শিক্ষা নিয়ে থাকি:

“সকল বিষয়ে আল্লাহ যে পরিকল্পনা করেছেন, করেন এবং ভবিষ্যতেও করবেন সেটাই সর্বোত্তম পরিকল্পনা। কারণ নিশ্চই আল্লাহ যা জানেন আমরা তা জানিনা, আল্লাহ সকল জ্ঞানের অধীকারি সর্বোশক্তিমান এক ও অদ্বিতীয় সৃষ্টিকর্তা ও পালনকর্তা।”

“নিশ্চয়ই আল্লাহ উত্তম পরিকল্পনাকারী” এর বর্ণনা:

আল্লাহ সর্বশক্তিমান। যিনি এই পৃথিবীর সবকিছু সৃষ্টি করেছেন তিনি যে কোন সময় এই পৃথিবীকে ধ্বংস করতে পারেন। পবিত্র কুরআনের বহু আয়াতে সর্বশক্তিমান আল্লাহর শক্তি বর্ণনা করা হয়েছে। কিন্তু তিনি এই পৃথিবীতে যা কিছু সৃষ্টি করেছেন তা মানবজাতির কল্যাণের জন্য। মানবজাতি তার সৃষ্টির সেরা জীব। তিনি পৃথিবীতে যা কিছু সৃষ্টি করেছেন তা অবশ্যই মানবজাতির কল্যাণের জন্য। তাই কুরআনের একটি বিশেষ আয়াতে বলা হয়েছে, নিশ্চয়ই আল্লাহ সর্বোত্তম পরিকল্পনাকারী

কিন্তু আমাদের মধ্যে অনেক মুসলিম ভাই ও বোন আছেন যারা নিশ্চয়ই আয়াতটি সম্পর্কে আরও জানতে চান যে আল্লাহই সর্বোত্তম পরিকল্পনাকারী। আর এ বিষয়টি জানতে তারা অনলাইনে গুগলসহ বিভিন্ন স্থানে সার্চ করছেন। তাই আপনারা যারা আল্লাহর সর্বোত্তম পরিকল্পনা সম্পর্কে এই আয়াতের বিস্তারিত জানতে চান, আমরা আমাদের আজকের আলোচনার মাধ্যমে সে সম্পর্কে আপনাদের অবহিত করব। আপনারা যারা এই বিষয়ে জানতে চান তারা আমাদের আজকের আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন তাহলে এই আয়াতটি সম্পর্কে জানতে পারবেন।

কোরআন হাদিসের বাণী
কোরআন ও হাদিসের বাণী
আল্লাহ পিকচার ডাউনলোড

মানুষের হতাশার জন্য আল্লাহর অনেক সুন্দর সমাধান এবং আশীর্বাদ থাকা সত্ত্বেও মানুষ আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করে না । মানুষ এক মুহুর্তের জন্যও কল্পনা করতে পারে না যে সর্বশক্তিমান আল্লাহর সর্বোত্তম পরিকল্পনা রয়েছে এবং যে কোনো সমস্যার সমাধান তাঁর কাছ থেকে পাওয়া যেতে পারে। কিন্তু আমরা আল্লাহর কাছে সাহায্য বা সমাধান চাই না। যার ফলে তিনি আমাদের থেকে মুখ ফিরিয়ে নেন। আর আমরা হই আল্লাহর ঘোষিত এসব মহান নেয়ামত থেকে বঞ্চিত। তাই সমস্ত হতাশা ও ব্যর্থতার জন্য একমাত্র সর্বশক্তিমান আল্লাহর কাছে সাহায্য ও সমাধান চাওয়া একজন মুমিনের শ্রেষ্ঠ বৈশিষ্ট্য।

“নিশ্চয়ই আল্লাহ উত্তম পরিকল্পনাকারী”

কুরআন এমন একটি গ্রন্থ যাতে প্রতিটি বিষয়ের ব্যাখ্যা রয়েছে। কুরআনের প্রতিটি আয়াতে মানবজাতির জন্য একটি বিশেষ বার্তা রয়েছে। আর তাই যারা কোনো ভালো কাজ করার আগে আল্লাহর কাছে পরিকল্পনা চায়, আল্লাহ তাদের সঠিক পরিকল্পনা দেন। কারণ সর্বশক্তিমান আল্লাহর মতো ভালো পরিকল্পনাকারী আর কেউ হতে পারে না। তাই পৃথিবীতে জীবিত অবস্থায় আমরা যা কিছু করি না কেন, তা করার আগে আল্লাহ তায়ালার কাছে সঠিক পরিকল্পনা চাইতে হবে।

পবিত্র কোরআন মাজিদের সূরা আনফালের ৩০ নং আয়াতের একটি অংশের অনুবাদ নিশ্চয়ই আল্লাহ সর্বোত্তম পরিকল্পনাকারী। আমরা বিশ্বাস করি মুসলমানরা এই টুকরো থেকে অনেক কিছু শিখতে পারবে। আমরা এই আয়াত থেকে একটি মহান শিক্ষা শিখতে. আমরা এই আয়াত থেকে জানি যে কাফেররা নবী মুহাম্মদকে হত্যা করার চেষ্টা করেছিল এবং পরিকল্পনা করেছিল। এই আয়াতের মাধ্যমে আমরা জানতে পারি যে যখন মক্কায় কাফেররা মুসলমানদের উপর অত্যাচার শুরু করে।

অতঃপর আল্লাহর হুকুমে মুসলমানরা ধীরে ধীরে মক্কা থেকে মদীনায় হিজরত করে। কিন্তু মুসলমানদের হত্যা করার জন্য কাফেরদের পরিকল্পনা কী ছিল, আল্লাহ তায়ালা হজরত জিব্রাইল (আ.)-এর মাধ্যমে প্রিয় নবী মুহাম্মদ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)-এর কাছে প্রকাশ করেন। এই আয়াতটি সুস্পষ্টভাবে ধারণা দেয় যে সর্বশক্তিমান আল্লাহ সবকিছু জানেন এবং ভবিষ্যতে আল্লাহ যা পরিকল্পনা করেন তা সর্বোত্তম পরিকল্পনা। কারণ নিশ্চয়ই আমরা জানি না আল্লাহ যা জানেন, আল্লাহ সব জানেন।

Surely Allah is the best planner – [Surah Anfal: 30]

আজকের আলোচনায় আমরা আপনাকে একটি বিশেষ আয়াতের বিশেষ দিক সম্পর্কে অবহিত করেছি এবং এই আয়াতটি নিশ্চয়ই আল্লাহ সর্বোত্তম পরিকল্পনাকারী। আপনারা যারা এই আয়াতের গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো জানতে চান তারা যদি আমাদের আজকের আলোচনাটি পড়েন তাহলে বুঝবেন যে, আল্লাহ সব বিষয়ে সবচেয়ে বেশি জ্ঞানী এবং তিনি প্রত্যেক ব্যক্তির অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যত জানেন, তিনি মহান।  আল্লাহ তাআলাই পরিকল্পনাকারী এবং তিনি এই পৃথিবীতে বিদ্যমান সবকিছুর পরিকল্পনা করেন।

আল্লাহই সবচেয়ে বড় পরিকল্পনাকারী;
——————————-

কোরআন আল-কারীমে আল্লাহ্‌ রাব্বুল ‘আলামীন বলেন :

“বস্তুত তোমরা এমন বিষয়কে অপছন্দ করছো যা তোমাদের পক্ষে বাস্তবিকই মঙ্গলজনক। পক্ষান্তরে, তোমরা এমন বিষয়কে পছন্দ করছো যা তোমাদের জন্য বাস্তবিকই অনিষ্টকর এবং আল্লাহ্‌ই অবগত আছেন আর তোমরা অবগত নও।” সূরা বাকারাহ্‌; ২ : ২১৬

আপনি আমি কেউই আল্লাহ্‌র পরিকল্পনার বাইরে নন :

“যদিও পরিস্থিতি একই রকম মনে হয়, তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ঘটে বিপরীত। তার মাকে মুসা (আলাইহিস সালাম)-কে নদীতে ভাসানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল; ইউসুফকে আলাইহিস সালাম হত্যা করার জন্য একটি কূপে ফেলে দেওয়া হয়েছিল; হযরত মরিয়ম আলাইহিস সালাম, যিনি ঈসা আলাইহিস সালামের মা এবং ঈসা (আলাইহিস সালাম) অলৌকিকভাবে একজন পুরুষের স্পর্শ ছাড়াই জন্ম নিয়েছেন; হযরত আয়েশা (রাদিয়াল্লাহু আনহা) মিথ্যা অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছেন; হযরত ইউনুস (আলাইহিস সালাম) একটি তিমি দ্বারা গিলে ফেলা হয়েছে; হযরত ইব্রাহিম (আলাইহিস সালাম) আগুনে নিক্ষিপ্ত হয়েছেন;

হযরত খাদিজার মৃত্যু বরণ করেছেন যিনি হযরত মুহাম্মদ (সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর প্রিয় স্ত্রী; হযরত সালামাহ (রাদিয়াল্লাহু আনহা) ভেবেছিলেন যে হযরত আবু সালামা (রাদিয়াল্লাহু আনহু) এর চেয়ে ভাল কেউ হতে পারে না; এক মুহুর্তের জন্য চিন্তা করুন, এই ঘটনাগুলি যখন ঘটেছিল তখন লোকেরা কী ভেবেছিল এবং কীভাবে ঘটনা ঘটেছিল !!

“নিশ্চয়ই আল্লাহ উত্তম পরিকল্পনাকারী”

অতএব, দুশ্চিন্তা করবেন না। আপনার জন্যও রয়েছে আল্লাহ্‌ রাব্বুল ‘আলামীনের পরিকল্পনা।

আল্লাহ বললেন, আল্লাহ কষ্টের পরেই সুখ দেবেন (কোরআন ৬৫ঃ৭)।
সূরা ইনশিরাহতে পর পর দুবার আল্লাহ বললেন, ফাইন্না মা‘আল ‘উছরি ইউছরা।
কষ্টের সাথেই তো স্বস্তি আছে। ইন্না মা‘আল ‘উছরি ইউছরা। অবশ্যই কষ্টের সাথে স্বস্তি আছে। (কোরআন ৯৪: ৫ ও ৬)।

নিশ্চয়ই আল্লাহ উত্তম পরিকল্পনাকারী বলতে কি বুঝায়?

আমরা অনেকেই জানি না এই আয়াত দ্বারা কি বুঝানো হয়েছে অর্থাৎ নিশ্চয়ই আল্লাহ সর্বোত্তম পরিকল্পনাকারী। প্রকৃতপক্ষে, এর অর্থ এই যে, আল্লাহ তায়ালা দৃশ্যমান এবং অদৃশ্য উভয়কেই পর্যবেক্ষণ করতে পারেন। অর্থাৎ আল্লাহ তায়ালা আগে ও পেছনের উভয় স্থানের খবর জানেন এবং দেখতে পারেন। এটি কতটা সুবিধাজনক যে আপনি পরিকল্পনা করেছেন এবং এটি বাস্তবায়নের চেষ্টা করছেন? একমাত্র সর্বশক্তিমান প্রভু যিনি আপনাকে সৃষ্টি করেছেন তিনিই এ সম্পর্কে পূর্ণ জ্ঞান রাখেন।

এবং আপনার পরিকল্পনার বিরুদ্ধে গিয়ে সে আপনার পরিকল্পনাকে হতাশাগ্রস্ত করে যদি এতে কোনো ত্রুটি থাকে। আর আমরা অনেকেই এটাকে একটা খারাপ দিক মনে করি যেটা মোটেও ভালো নয়। আসলে এটা আমার জন্য আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে একটি বড় অনুগ্রহ মাত্র। আল্লাহ তায়ালা আমার বিরুদ্ধে আপনার বিরুদ্ধে যা পরিকল্পনা করেছেন এবং আপনি আমার শান্তির জন্য যা দিয়েছেন। এই পরিকল্পনা প্রদানের পরিকল্পনা শুধুমাত্র দেখা এবং অদেখা জিনিস থেকে সম্ভব।

দৃশ্য-অদৃশ্য সব কর্মকাণ্ড দেখে সঠিক পরিকল্পনা গ্রহণ করতে পারেন একমাত্র মহান রাব্বুল আলামিন। আর এ কারণেই বলা হয় যে নিশ্চয়ই আল্লাহ সর্বোত্তম পরিকল্পনাকারী কারণ তিনি দৃশ্যমান এবং অদৃশ্য উভয়ই দেখেন।

“নিশ্চয়ই আল্লাহ উত্তম পরিকল্পনাকারী”

Surely Allah is the best planner – [Surah Anfal: 30]

মহান আল্লাহ সর্বশক্তিমান। যে কোনো কিছু করার একচ্ছত্র ক্ষমতাও তার। কুরআনুল কারিমের অনেক আয়াতে এসব ক্ষমতা বর্ণনা দিয়েছেন তিনি। মানুষ যেসব স্থানে নিজেকে অসহায় বা ব্যর্থ ভাবেন সেসব স্থানেও মহান আল্লাহ মানুষকে দেখিয়েছেন সমাধানের পথ। শুনিয়েছেন নেয়ামত ও কল্যাণের কথা।

মানুষকে ব্যর্থতামুক্ত করতে তিনি নিজেই নিয়েছেন সে ভার। এসব ব্যর্থতা ও অপারগতা থেকে বেরিয়ে আসতে শুধু প্রয়োজন তার ঐকান্তিক প্রচেষ্টা। মানুষের কিছু ব্যর্থতা ও তার সমাধান তুলে ধরা হলো-

– মানুষ বলে, আমি ব্যর্থ!
> আল্লাহ বলেন, ‘অবশ্যই ঈমানদার সফল হয়’ (সুরা মুমিনুন : আয়াত ১)

– মানুষ বলে, আমার জীবনে অনেক কষ্ট!
> আল্লাহ বলেন, ‘নিশ্চয় কষ্টের সঙ্গেই রয়েছে স্বস্তি।’ (সুরা নাশরাহ : আয়াত ৬)

– মানুষ বলে, আমাকে কেউ সাহায্য করে না!
> আল্লাহ বলেন, ‘মুমিনদের সাহায্য করা আমার দায়িত্ব’ (সুরা রূম : আয়াত ৪৭)

– মানুষ বলে, আমি দেখতে খুবই কুৎসিত!
> আল্লাহ বলেন, ‘আমি সৃষ্টি করেছি মানুষকে সুন্দরতর অবয়বে।’ (সুরা ত্বীন : আয়াত ৪)

– মানুষ বলে, আমার সঙ্গে কেউ নেই!
> আল্লাহ বলেন, তোমরা ভয় করো না, আমি তোমাদের সঙ্গে আছি, আমি শুনি এবং দেখি।’ (সুরা ত্বহা : আয়াত ৪৬)

– মানুষ বলে, আমার গোনাহ অনেক বেশি!
> আল্লাহ বলেন, ‘নিশ্চয়ই আল্লাহ তওবাকারীদের ভালোবাসেন।’ (সুরা বাকারা : আয়াত ২২২)

– মানুষ বলে, আমি সব সময় অসুস্থ থাকি!
> আল্লাহ বলেন, ‘আমি কোরআনে এমন বিষয় নাযিল করেছি যা রোগের সুচিকিৎসা এবং মুমিনের জন্য রহমত। গোনাহগারদের তো এতে শুধু ক্ষতিই বৃদ্ধি পায়।’ (সুরা বনি ইসরাঈল : আয়াত ৮২)

– মানুষ বলে, এ দুনিয়া আমার ভালো লাগে না!
> আল্লাহ বলেন, ‘আপনার জন্যে দুনিয়ার চেয়ে পরকালই উত্তম।’ (সুরা দোহা : আয়াত ৪)

– মানুষ বলে, সফলতা অনেক দূর!
> আল্লাহ বলেন, ‘আমার সাহায্যে একেবারেই কাছাকাছি।’ (সুরা বাকারা : আয়াত ২১৪)

– মানুষ বলে, আমার জীবনে আনন্দ নেই!
> আল্লাহ বলেন, আপনার পালনকর্তা শিগগিরই আপনাকে এতা দান করবেন, অতপর আপনি সন্তুষ্ট হবেন।’ (সুরা দোহা : আয়াত ৫)

– মানুষ বলে, আমি সব সময় হতাশ!
> আল্লাহ বলেন, ‘আর তোমরা হতাশ হয়ো না এবং দুঃখ করো না। যদি তোমরা মুমিন হও তবে, তোমরাই জয়ী হবে।’ (সুরা ইমরান : ১৩৯)

– মানুষ বলে, আমার কোনো পরিকল্পনাই সফল হচ্ছে না!
> আল্লাহ বলেন, আমিও কৌশল অবলম্বন করেন। মূলতঃ আল্লাহই হচ্ছেন সর্বোত্তম পরিকল্পনাকারী’ (সুরা ইমরান : আয়াত ৫৪)

– মানুষ বলে, আমার কেউ নেই!
> আল্লাহ বলেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর উপর ভরসা করে তার জন্যে তিনিই যথেষ্ট। আল্লাহ তার কাজ পূর্ণ করবেন।’ (সুরা তালাক : আয়াত ৩)

অতএব, সমস্ত হতাশা ও ব্যর্থতায় অন্য কারো কাছ থেকে নয়, সর্বশক্তিমান আল্লাহর কাছে সাহায্য ও সমাধান চাওয়া একজন মুমিনের জন্য উত্তম।

আল্লাহ তায়ালা মুসলিম উম্মাহকে ঘোষিত দোয়া ও রহমতের জন্য আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের দেখানো পথে সমাধান বের করার তাওফিক দান করুন। আপনি হতাশা এবং ব্যর্থতাকে বিদায় জানাতে আল্লাহ তাআলা নির্দেশনা মোতাবেক চলতে হবে এবং আল্লাহর উপর পরিপূর্ণ ভরসা রাখতে হবে ।

 



Related Posts

About the author

6 responses to ““নিশ্চয়ই আল্লাহ সবচেয়ে উত্তম পরিকল্পনাকারী।” এটি কোন সূরার কোন আয়াত”

Leave a Reply

Back to top arrow
কনফিউজিং সাধারণ জ্ঞান | General Knowledge for BCS, Admission & Jobs Exam Daily Spoken English #1 | English Spoken Tips চল্লিশ হাজার হাদীস থেকে চারটি কথা | Islamic Post A Railway Station Paragraph For SSC & HSC | Paragraph মৃত্যুর পরেও নেকি পাওয়ার ৬ টি উপায় | Islamic Post
কনফিউজিং সাধারণ জ্ঞান | General Knowledge for BCS, Admission & Jobs Exam Daily Spoken English #1 | English Spoken Tips চল্লিশ হাজার হাদীস থেকে চারটি কথা | Islamic Post A Railway Station Paragraph For SSC & HSC | Paragraph মৃত্যুর পরেও নেকি পাওয়ার ৬ টি উপায় | Islamic Post
কনফিউজিং সাধারণ জ্ঞান | General Knowledge for BCS, Admission & Jobs Exam Daily Spoken English #1 | English Spoken Tips চল্লিশ হাজার হাদীস থেকে চারটি কথা | Islamic Post A Railway Station Paragraph For SSC & HSC | Paragraph মৃত্যুর পরেও নেকি পাওয়ার ৬ টি উপায় | Islamic Post
Enable Notifications OK No thanks