আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস অনুচ্ছেদ

2
87
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস অনুচ্ছেদ
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস অনুচ্ছেদ
Advertisements
Rate this post

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস অনুচ্ছেদ

২১শে ফেব্রুয়ারি আমাদের ইতিহাসে একটি লাল অক্ষরের দিন। এটি শহীদ দিবস বা মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালন করা হয়। 1952 জুড়ে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের ছাত্র ও সাধারণ জনগণ পাকিস্তানি নেতাদের অবিচল ঘোষণা “উর্দুই হবে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা” র বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছিল । এই অন্যায্য চাপিয়ে দেওয়া এবং মাতৃভাষার মর্যাদা অস্বীকার করার প্রতিবাদে ছাত্রসমাজ ও সাধারণ জনগণ প্রতিবাদ করে। তারা বাংলাকে মর্যাদা ভাষার মর্যাদা দেওয়ার দাবি জানান। ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ছাত্রদের নিয়ে আসা মিছিলে পুলিশ গুলি চালালে তাদের বিক্ষোভ শেষ হয়। রফিক, জব্বার, সালাম, বরকতসহ কয়েকজন বীর সন্তানদের হত্যা করা হয়। ভাষার জন্য তারাই পৃথিবীর প্রথম শহীদ। এই রক্ত-ঝরা ঐতিহাসিক ২১শে ফেব্রুয়ারি। এরপর থেকে দিবসটি শহীদ দিবস হিসেবে পালন করা হচ্ছে। শহীদরা তাদের ত্যাগ ও রক্তের মাধ্যমে মাতৃভাষার মর্যাদার দাবি তুলেছেন। বীর বাঙালিদের সংগ্রাম ও আত্মত্যাগের স্বীকৃতিস্বরূপ এবং বিশ্বের প্রতিটি ভাষাকে প্রচার ও টিকিয়ে রাখার জন্য ১৯৯৮ সালে ইউনেস্কো ২১শে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। তারপর থেকে দিবসটি বিশ্বব্যাপী সম্মান ও গাম্ভীর্যের সঙ্গে পালিত হচ্ছে।

ভাব-সম্প্রসারণ: অন্যায় যে করে আর অন্যায় যে সহে তব ঘৃণা যেন তারে

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস অনুচ্ছেদ

২১শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস।এই দিনটি আমাদের গৌরব। আমরা এই দিনটিকে নিয়ে গর্ববোধ করি।প্রতি বছর, এই দিনটি শ্রদ্ধা ও গাম্ভীর্যের সাথে পালিত হয়। ২১শে ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি লাল অক্ষরের দিন। এই দিনে মাতৃভাষার জন্য আমাদের বীর সন্তানেরা প্রাণ দিয়েছিলেন। পাকিস্তানি শাসকরা উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করে। আমাদের ছেলেরা এর প্রতিবাদ করেছিল, এবং তাদের কয়েকজনকে 1952 সালের 21শে ফেব্রুয়ারি নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল। অবশেষে,  21শে ফেব্রুয়ারি আমাদের ভাষা দিবসে পরিণত হয়েছে। এই দিনে আমরা গর্বিত বোধ করি। 1999 সালে ইউনেস্কো এই দিনটিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবে ঘোষণা করলে আমাদের গৌরব চরমে পৌঁছে। এখন, এই দিনটি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দ্বারা বিশ্বব্যাপী পালিত হয়। প্রতি বছর এই দিনটি যথাযথ সম্মান ও গাম্ভীর্যের সাথে পালিত হয়। এই দিনে বাংলাদেশ তার বীর সন্তানদের স্মরণ করে। আমরা শহীদ মিনারে ফুল নিবেদন করি। দিবসটি উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন অন্যান্য অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করে। এই দিনটি এলে আমরা খুব উত্সাহী হয়ে উঠি। প্রতিটি দেশ আমাদের আত্মত্যাগকে মর্যাদা দেয় ।

Advertisements

ভাবসম্প্রসারণ: গ্রন্থগত বিদ্যা আর পরহস্তে ধন, নহে বিদ্যা নহে ধন হলে প্রয়োজন।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস অনুচ্ছেদ
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস রচনা
২১ শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস কবে
21 ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস রচনা ২০০ শব্দের
অনুচ্ছেদ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস বলতে কি বুঝ
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস কি

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস অনুচ্ছেদ

বাংলাদেশের ইতিহাসে ২১শে ফেব্রুয়ারির গুরুত্ব অত্যুক্তি করা যায় না। ২১শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। ১৯৫২ সালের এই দিনে বাংলা ভাষাকে বাঁচাতে ছাত্ররা তৎকালীন সরকারের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে বাংলা ভাষাকে ছিনিয়ে নিয়েছিল। এই দিনে মানুষ ভোরে ঘুম থেকে উঠে ‘শহীদ মিনারে খালি পায়ে যায়। শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে ‘শহীদ মিনারে’-এ ফুল দেয় মানুষ। দিবসটি উপলক্ষে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সন্ধ্যায়, লোকেরা আলোচনা বা সেমিনারের আয়োজন করে। আমাদের জাতীয় বীরদের বীরত্বপূর্ণ কাজের স্মরণে মানুষ তা করে থাকে । এই দিনটি একসময় শুধু আমাদের দেশবাসীর গর্বের ছিল, কিন্তু সারা বিশ্ব বর্তমানে এই দিনটিকে যথাযথ সম্মানের সাথে পালন করে। সমগ্র বিশ্ব আমাদের মহান সন্তানদের স্মরণ করে। বিশ্ব এখন জানে বাঙালিরা অনেক সাহসী; তারা তাদের মাতৃভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য তাদের জীবন বিসর্জন দিতে ভয় পায় না।

ভাবসম্প্রসারণ : অতি বাড় বেড়ো না, ঝড়ে পড়ে যাবে ভাবসম্প্রসারণ

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস অনুচ্ছেদ

মাতৃভাষা মানে এমন একটি ভাষা যার মাধ্যমে একটি দেশের মানুষ তাদের ধারণা, চিন্তাভাবনা, অনুভূতি এবং আবেগ স্পষ্টভাবে প্রকাশ করে। ২১শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। বিভিন্ন দেশের বিদ্যমান মাতৃভাষার প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শনের জন্য ইউনেস্কো এই দিনটিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করেছে। দিবসটির একটি দীর্ঘ গৌরবময় ঐতিহাসিক পটভূমি রয়েছে।পাকিস্তানের তৎকালীন শাসকরা বাংলার পরিবর্তে ‘উর্দু’কে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে আমাদের ওপর চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছিল। 1952 সালে আমাদের দেশের স্বাধীনতার আগে, তৎকালীন পাকিস্তানি শাসক জিন্নাহ একটি জনসভায় ঘোষণা করেছিলেন যে “কেবল উর্দু এবং উর্দুই হবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা।” এই অন্যায় সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে ফেটে পড়ে আমাদের দেশের মানুষ। ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি এই মাটির কিছু বীর সন্তান এগিয়ে এসে মাতৃভাষার জন্য তাদের মূল্যবান জীবন উৎসর্গ করেন। দিবসটি পালনের উদ্দেশ্য ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো। দিনটি বাংলাদেশের মানুষের জন্য অপরিহার্য। এই দিনটি ১৯৯৯ সালে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ করে।

বাংলা রচনা : জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রচনা

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস অনুচ্ছেদ

যে কোনো আন্তর্জাতিক দিবস সারা বিশ্বে সম্প্রীতির সাথে পালন করা হয়। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে বিশ্বের প্রতিটি জাতি একটি দেশের ভাষাকে সম্মান করে। মাতৃভাষা দিবসকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালন করা বাঙালির জন্য একটি অসামান্য অর্জন। ১৯৯৯ সালে ইউনেস্কো ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। সেই ঘোষণায় আমাদের মাতৃভাষা বাংলা আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পায়। এই মহিমান্বিত উপলক্ষ আমাদের সেই মাটির বীর সন্তানদের স্মরণ করিয়ে দেয় যারা আমাদের মাতৃভাষাকে মহিমান্বিত করতে তাদের জীবন উৎসর্গ করেছিলেন। বরকত, সুলাম, জব্বার এবং রফিক যারা এই মহান উদ্দেশ্যে জীবন উৎসর্গ করেছিলেন তাদের মধ্যে ছিলেন। তারা পাকিস্তানি শাসকের গুলিতে মৃত্যু বরণ করে। তারা ‘উর্দু’কে রাষ্ট্রভাষা করার বিরুদ্ধে ব্যাপক প্রতিবাদ জানায়। বাংলা ভাষাকে দমন করতে পাক শাসকেরা মিছিলে নির্বিচারে গুলি চালায়। এই মাতৃভাষা দিবসে জাতি শ্রদ্ধা জানায় বীর সন্তানদের তাদের সর্বোচ্চ আত্মত্যাগের জন্য। ইউনেস্কোর ঘোষণার মাধ্যমে এই পৃথীবির মানুষ আমাদের মাতৃভাষার প্রতি আমাদের গভীর ভালোবাসা এবং এর জন্য আমাদের সংগ্রাম সম্পর্কে জানতে পারে। বিশ্ববাসী শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায়। আমরা গর্বিত আমাদের বীর সন্তানদের জন্য যারা আমাদের জাতির জন্য এই সম্মান এনেছে। এই দিনটি আমাদের সেই উদ্দেশ্য পূরণে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ হতে শেখায় যার জন্য আমাদের সাহসী ছেলেরা তাদের জীবন দিয়েছিলেন।

এক থেকে একশ বানান | ১ থেকে ১০০ পর্যন্ত বানান ( প্রমিত বানান উচ্চারণসহ)

  • আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস কবে?
  • ২১ শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস।

 

  • আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস বলতে কি বুঝ? / আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস কি?
  • আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হল একুশে ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গসহ সমস্ত বাংলাভাষী অঞ্চলে পালিত একটি বিশেষ দিবস, যা ১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দের ১৭ নভেম্বরে জাতিসংঘ কর্তৃক গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রতিবছর ২১শে ফেব্রুয়ারি বিশ্বব্যাপী পালন করা হয়। এটি শহীদ দিবস হিসাবেও পরিচিত।

 

  • আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস কেন পালন করা হয়?

২১শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। প্রতিটি জাতিরই উল্লেখযোগ্য সাফল্য রয়েছে যা নিয়ে তারা গর্ব করতে পারে। আমাদের ভাষা দিবস আমাদের জাতীয় অনুষ্ঠান ও সাফল্য। এখন, চিহ্নিতকরণের পর, আমাদের ভাষা দিবসটি বিশ্বব্যাপী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবে পালন করা হয়। পশ্চিম পাকিস্তানের শাসক কর্তৃপক্ষ 1948 সালে উর্দুকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হিসাবে স্বীকৃতি দেয় এবং বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের উপর এটি চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। বিক্ষোভ শক্তিশালী হয়ে উঠলে ক্ষমতাসীন কর্তৃপক্ষ সারা দেশে ১৪৪ ধারা জারি করে। তবে ছাত্র রাজনীতিবিদ ও সাধারণ জনতা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ১৪৪ ধারা অমান্য করে মিছিল বের করলে পুলিশ কুচকাওয়াজে গুলি চালায়। ফলে রফিক, জব্বার, সালাম, বরকত, শফিক শাহাদাত বরণ করেন। অবশেষে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে স্বীকৃতি পেল বাংলা।

17 নভেম্বর 1999 তারিখে, ইউনেস্কো ঘোষণা করে যে ইউনেস্কো দিবসটি আন্তর্জাতিকভাবে পালন করবে। ইউনেস্কোর স্বীকৃতির মাধ্যমে আমাদের ভাষা দিবস আন্তর্জাতিক মর্যাদা পেয়েছে। 1952 সাল থেকে 21শে ফেব্রুয়ারি আমাদের দেশে ভাষা দিবস হিসেবে পালন করা হয়। আমরা আমাদের শহীদদের স্মরণ করি। মাতৃভাষার জন্য জীবন উৎসর্গ করা বিশ্বের একমাত্র দেশ। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আমাদের ইতিহাস এবং আমাদের অর্জনের একটি চমৎকার স্বীকৃতি।

ভাষা আন্দোলন বাঙালি জাতির ইতিহাসের পাশাপাশি বিশ্ব ইতিহাসে একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা কারণ অন্য কোনো জাতি তার মাতৃভাষার জন্য রক্তপাত করেনি। ইউনেস্কো ২১৫ ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবসকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করায় এটা এখন আমাদের জন্য গর্বের ও গর্বের বিষয়। এখন 215 ফেব্রুয়ারি একটি লাল অক্ষর দিবস হিসাবে বিবেচিত হয়। এখন সারা বিশ্বে অত্যন্ত শ্রদ্ধা ও উৎসাহের সাথে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে। আমাদের দেশে জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পালন করা হয়। যেদিন সরকারি ভবন ও অফিসে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করা হয়। সকল শ্রেণীর মানুষ “প্রভাত ফেরি” নামে একটি মিছিল বের করে যেখানে তারা খালি পায়ে হেঁটে এবং দুঃখের গান গায়,

“আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পরী……….“।

শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে তারা শহীদ মিনারের পাদদেশে ফুল ও পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। দিবসটির তাৎপর্য আলোচনা ও প্রদর্শনের জন্য সারাদেশে সভা, আলোচনা অনুষ্ঠান, সেমিনার এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। দিবসটি উপলক্ষে বিভিন্ন স্থানে মেলা ও প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়। এ উপলক্ষে বই ও পুস্তিকা প্রকাশও একটি সাধারণ ঘটনা। পত্র-পত্রিকাও বিশেষ সংখ্যা বের করে। টিভি ও রেডিওও দিবসটির গুরুত্ব তুলে ধরে বিশেষ অনুষ্ঠান সম্প্রচার করে। দিনটি আমাদের জাতীয় জীবনে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ একটি দিন হিসেবে পালিত হয়।

2 COMMENTS

Leave a Reply