আলাে বলে অন্ধকার তুই বড়াে কালাে, অন্ধকার বলে ভাই তাই তুমি আলো

0
53
যে নদী হারায়ে স্রোত চলিতে না পারে সহস্র শৈবালদাম বাঁধে আসি তারে; যে জাতি জীবনহারা অচল অসাড় পদে পদে বাঁধে তারে জীর্ণ লোকাচার ।
যে নদী হারায়ে স্রোত চলিতে না পারে সহস্র শৈবালদাম বাঁধে আসি তারে; যে জাতি জীবনহারা অচল অসাড় পদে পদে বাঁধে তারে জীর্ণ লোকাচার ।
Advertisements
Rate this post

আলাে বলে অন্ধকার তুই বড়াে কালাে, অন্ধকার বলে ভাই তাই তুমি আলো

মূলভাব: সৃষ্টিকর্তা আলো-অন্ধকার সৃষ্টি করেছেন। আলো আছে বলে আঁধার আছে । আঁধার আছে বলে আলোর পরিচয় স্পষ্ট হয়ে ওঠে। আলো এবং অন্ধকার পরস্পর বিপরীত ধর্মী হলেও একে অপরের পরিপূরক। মানবজীবনের সর্বত্রই আলো আঁধার রূপ সুখ-দুঃখের সমাবেশে দেখতে পাওয়া যায়। জীবনে আলো-আঁধার, সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনার পাশাপাশি আছে বলেই জীবনের প্রকৃত বৈশিষ্ট্য সহজে অনুবাধন করা যায়।

সম্প্রসারিত ভাব: আমরা যে আলাে-আঁধার দেখি তা স্রষ্টার দুটি রহস্যময় সৃষ্টি। উভয়ই সৃষ্টিকর্তার দান। উভয়ই জীবনের জন্য অপরিহার্য। একটি ছাড়া অপরটির কথা কল্পনাও করা যায় না। প্রশ্নোক্ত কবিতাংশে আলাে অন্ধকারকে ব্যঙ্গ করে বলছে যে, সে খুব কালাে। যার প্রত্যুত্তরে অন্ধকার বলছে সে আছে বলেই আলাের স্বরূপটি প্রতিভাত হয়। ঠিক একইভাবে মানবজীবনে দুঃখ আছে বলে সুখের মর্ম উপলব্ধি করা যায়। সুতরাং সাদা-কালাে, পাহাড়-সমতল, মরুভূমি-সমুদ্র- এ সবই প্রকৃতির অংশ। পারস্পরিক বৈপরীত্যের সমন্বয়ে সবকিছুর ভারসাম্য রক্ষিত হয়।

বিচিত্র এ পৃথিবীতে কোথাও দেখা যায় অরণ্যের গহিনতা, আবার কোথাও সবুজের চিহ্নমাত্র নেই। কোথাও প্রাণের বিচিত্র লীলা তরঙ্গায়িত হচ্ছে, আবার কোথাও দেখা যায় নিস্পাপ জড়বস্তু স্থির হয়ে আছে। বিশ্বের সবকিছুরই বৈপরীত্য আছে বলেই আমরা সূর্যালােকে পৃথিবীময় প্লাবিত থাকতাে, তাহলে আলাের কোনাে মূল্য থাকতাে না। অন্ধকার এসে দিনের আলােকে গ্রাস করে বলেই আলাের মর্ম আমরা সঠিকভাবে বুঝতে পারি।

Advertisements

সকালের সােনালি সূর্যের অপেক্ষায় থাকি। আবার যদি চির অন্ধকারের মধ্যে দিন কাটাতে হতাে তাহলে আমরা আলাের মর্ম বুঝতে পারতাম না। যদি অভাববােধ না থাকতাে, তাহলে মানব প্রগতি বহুকাল আগেই থেমে যেত। অতৃপ্তি না থাকলে জ্ঞানবিজ্ঞানের উৎকর্ষ সাধিত হতাে না, বেদনা না থাকলে মহৎ কাজ কোনােদিনই সংঘটিত হতে পারতাে না। বাস্তব জীবনে ভালাে-মন্দ, ইতর-ভদ্র, সুজন-কুজন পারস্পরিক পার্থক্য থাকার কারণেই পৃথিবী আমাদের কাছে এত আকর্ষণীয়। মন্দ আছে বলেই আমরা ভালাের মর্যাদা উপলব্ধি করতে পারি।

মন্তব্য: ভালাে-মন্দ হচ্ছে একে অন্যের পরিপূরক। সুতরাং পৃথিবীর কোনােকিছুকেই তুচ্ছতাচ্ছিল্য করা ঠিক নয়। প্রতিটি সৃষ্টিই কোনাে না কোনাে প্রয়ােজন মিটিয়ে চলেছে।

আলাে বলে অন্ধকার তুই বড়াে কালাে, অন্ধকার বলে ভাই তাই তুমি আলো

আরও পড়ুন……

Leave a Reply