আমাদের বিদ্যালয় রচনা

Author:

Published:

Updated:

অফিস ছুটির জন্য আবেদন

Get Study Online – Google News

Do you want to get our regular post instant? So you can follow our Google News update from here.

আমাদের বিদ্যালয় রচনা

আমাদের বিদ্যালয় রচনা

প্রিয় শিক্ষার্থী বন্ধুরা আশা করি তোমরা ভাল আছো । তো আজকে তোমাদের জন্য নিয়ে এলাম আমাদের বিদ্যালয় রচনা। এই রচনা তোমরা যারা পরীক্ষার্থী তাদের অনেক কাজে লাগবে । তো তোমাদের ভাল লাগলে অবশ্যই বন্ধুদের সাথে Facebook messenger, WhatsappTelegram, Instagram এবং IMO তে শেয়ার করতে পারো ।

আমাদের বিদ্যালয় রচনা

ভূমিকা : আমাদের বিদ্যালয়ের নাম চান্দনা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়। গাজীপুর জেলা সদর থেকে পাঁচ কিলোমিটার পশ্চিমে চন্দনা গ্রামে একটি অবস্থিত। গ্রামের নামেই বিদ্যালয়টির নামকরণ করা হয়েছে। বাংলাদেশ স্বাধীন হবার পর স্থানীয় বিদ্যোৎসাহীদের প্রচেষ্টায় বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয়। এটি একটি বৃহৎ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

অবস্থান : আমাদের বিদ্যালয়টি যেখানে অবস্থিত তা চৌরাস্তা নামে পরিচিত। ঢাকা থেকে টাঙ্গাইল কিংবা রাজেন্দ্রপুর ন্যাশনাল পার্কে যাবার রাস্তার ঠিক পাশেই এটি অবস্থিত। বিদ্যালয়টি দেখতে অনেকটা ইংরেজি ‘এল’ অক্ষরের মত। এটি পূর্ব-দক্ষিণ মুখী। এর চারপাশ প্রাচীর বেষ্টিত। বিদ্যালয়ের প্রবেশ পথটি দক্ষিণ দিকে অবস্থিত। এর মূল ভবন দক্ষিণমুখী একটি টিনের ঘর। মূল ভবনের পাশাপাশি পূর্বমুখী আরো দু’টি ভবন রয়েছে- এর একটি বিল্ডিং এবং অন্যটি টিনের ঘর। বিদ্যালয়ের সামনে একটি বড় খেলার মাঠ রয়েছে। প্রত্যহ ক্লাশ শুরু হবার আগে বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা এখানে মিলিত হয়ে জাতীয় সঙ্গীত গেয়ে থাকে। সৌন্দর্যের দিক থেকে বিদ্যালয়টির একটি প্রধান আকর্ষণ হচ্ছে চৌরাস্তার বিখ্যাত মুক্তিযোদ্ধা মূর্তিটি। এটি ঠিক এর সামনেই অবস্থিত।

আমাদের বিদ্যালয় রচনা

বর্ণনা: বিদ্যালয় গৃহটিতে মোট সতেরটি কক্ষ রয়েছে। প্রধান শিক্ষকের অফিস কক্ষটি রাস্তা লগ্ন বিল্ডিটিতে অবস্থিত। এছাড়া এখানে একটি পাঠাগার, বিজ্ঞান-গবেষণাগার, মেয়েদের জন্য কমনরুম এবং সহকারী শিক্ষকদের জন্য বসবার ঘর রয়েছে। অফিস সহকারীর কক্ষটি প্রধান শিক্ষকের কক্ষের ঠিক পাশেই অবস্থিত। টিনের ঘর দু’টোর মাঝে দেয়াল তুলে দিয়ে সেগুলোকে শ্রেণীকক্ষ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। প্রত্যেকটি শ্রেণীকক্ষেই পর্যাপ্ত সংখ্যক দরজা জানালা, চেয়ার-টেবিল এবং বেঞ্চ রয়েছে। এছাড়া প্রতিটি কক্ষেই বৈদ্যুতিক বাতি এবং পাখা রয়েছে।

আমাদের বিদ্যালয়ে ষষ্ঠ শ্রেণী থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত পড়ানো হয়। পাঁচটি শ্রেণীতে মোট ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা এক হাজারের ওপরে। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল থাকায় অনেক দূর থেকে ছেলে-মেয়েরা এসে এখানে লেখাপড়া করে। বিদ্যালয়ে মোট ত্রিশজন শিক্ষক রয়েছে। প্রধান শিক্ষক সাহেব এম. এ, বি-এড্। অন্যান্য শিক্ষকদের মধ্যে কেউ বিজ্ঞানে স্নাতক, কেউ সাহিত্যে, কেউবা বাণিজ্যে। অধিকাংশ শিক্ষকই প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত। এছাড়া একজন পণ্ডিত, একজন মৌলবী এবং একজন শরীর চর্চা শিক্ষক রয়েছেন। আমাদের শিক্ষকগণের সবাই শিক্ষার প্রতি নিবেদিতপ্রাণ। খুব যত্নের সাথে তাঁরা আমাদেরকে শিক্ষা দিয়ে থাকেন। তাঁরা আমাদেরকে স্নেহও করেন। আমরা শিক্ষকগণের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করি।

আমাদের বিদ্যালয় রচনা

আমাদের বিদ্যালয়ের শিক্ষা বহুমুখী। কলা, বাণিজ্য, বিজ্ঞান, কৃষিবিজ্ঞান প্রভৃতি বিষয়ে এখানে শিক্ষা দেয়া হয়। নবম শ্রেণীতে ওঠে ছাত্র-ছাত্রীরা নিজ নিজ পছন্দ মাফিক বিষয়ে অধ্যয়ন করে থাকে। ছাত্র-ছাত্রীরা অত্যন্ত অধ্যবসায়ী এবং মনোযোগের সাথে লেখাপড়া করে থাকে। পড়াশুনার সুবিধার জন্য বিদ্যালয়ে একটি পাঠ কক্ষও রয়েছে। গ্রন্থাগার থেকে পছন্দ মত বই এনে ছেলে-মেয়েরা এখানে পড়াশুনা করে। বিদ্যালয়ে বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফল খুবই ভাল। মাধ্যমিক পরীক্ষায় প্রতি বছর এখান থেকে অনেকেই কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হয়ে সরকারি বৃত্তি পেয়ে থাকে।

আমাদের বিদ্যালয় দশটায় আরম্ভ হয়ে চারটায় ছুটি হয়ে যায়। মাঝে আধ ঘণ্টার জন্য বিরতি। ছুটির পর বিদ্যালয়ে প্রায়দিনই কোন না কোন অনুষ্ঠান থাকে। খেলাধুলা, বিতর্ক, রচনা প্রতিযোগিতা-প্রায় প্রতিটি বিষয়েই এ বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের কৃতিত্ব প্রায় অবিসংবাদিত। শরীর চর্চা শিক্ষকের তত্ত্বাবধানে আমাদের একটি ফুটবল দল রয়েছে। দলটি প্রতি বছরই আন্তঃজেলা ফুটবল প্রতিযোগিতায় বিজয়ের গৌরব অর্জন করে। এছাড়া বিদ্যালয়ের ছেলে-মেয়েরা অন্যান্য খেলাও নিয়মিত খেলে। এসব খেলার মধ্যে হা-ডু-ডু একটি জনপ্রিয় খেলা। নতুন বছরের শুরুতে বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। বার্ষিক পুরস্কার বিতরণী সভাও একই সাথে অনুষ্ঠিত হয়।

উপসংহার: বাংলাদেশের অনেক বিদ্যালয়ের মত আমাদের বিদ্যালয়েরও অনেক সমস্যা রয়েছে। এসবের মধ্যে অর্থনৈতিক সমস্যাই মূল সমস্যা। শিক্ষার উপকরণের অভাব, যথাসময়ে শিক্ষকগণের বেতন পরিশোধ করতে না পারা প্রভৃতি অসুবিধা অনেক সময় শিক্ষার পরিবেশকে ভারাক্রান্ত করে তোলে। নানা সমস্যা থাকা সত্ত্বেও আমরা আমাদের বিদ্যালয়ের জন্য গর্বিত।

 

আরও পড়ুন……



Related Posts

About the author

Leave a Reply

Back to top arrow
কনফিউজিং সাধারণ জ্ঞান | General Knowledge for BCS, Admission & Jobs Exam Daily Spoken English #1 | English Spoken Tips চল্লিশ হাজার হাদীস থেকে চারটি কথা | Islamic Post A Railway Station Paragraph For SSC & HSC | Paragraph মৃত্যুর পরেও নেকি পাওয়ার ৬ টি উপায় | Islamic Post
কনফিউজিং সাধারণ জ্ঞান | General Knowledge for BCS, Admission & Jobs Exam Daily Spoken English #1 | English Spoken Tips চল্লিশ হাজার হাদীস থেকে চারটি কথা | Islamic Post A Railway Station Paragraph For SSC & HSC | Paragraph মৃত্যুর পরেও নেকি পাওয়ার ৬ টি উপায় | Islamic Post
কনফিউজিং সাধারণ জ্ঞান | General Knowledge for BCS, Admission & Jobs Exam Daily Spoken English #1 | English Spoken Tips চল্লিশ হাজার হাদীস থেকে চারটি কথা | Islamic Post A Railway Station Paragraph For SSC & HSC | Paragraph মৃত্যুর পরেও নেকি পাওয়ার ৬ টি উপায় | Islamic Post
Enable Notifications OK No thanks